কলামিস্টদের নাম
ফরহাদ মজহার এর কলামগুলো

এখন ঘুরে দাঁড়াবার সময়
লোককথা
নয়া দিগন্ত
০৬ এপ্রিল, ২০১৩
‘নাগরিক’ বা ‘নাগরিকতা’ আমাদের রাষ্ট্র কিম্বা সমাজচিন্তার গুরুত্বপূর্ণ কোন ধারণা নয়। মানবাধিকার নিয়েও আমরা কথা বলি এবং কাজও করি, কিন্তু গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠনের সঙ্গে নাগরিক ও মানবিক অধিকারের সম্পর্ক ঠিক কোথায় এবং কিভাবে তারা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের গাঠনিক ভিত্তি হিশাবে কাজ করে সেই সব বিষয়ে আমাদের সমাজে ভাবনা চিন্তার অভাব আছে। আমরা স্বাধীনতাযুদ্ধ করেছি, ফলে মুক্তিযুদ্ধ আমাদের কল্পনা ও আবেগের প্রায় পুরোটাই দখল করে আছে। আমাদের বুদ্ধিবৃত্তির সাড়ে পনেরো আনা অংশ খরচ হয় স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মৃতিচারণে। কিন্তু পরাধীনতার হাত থেকে মুক্তির জন্য সশস্ত্র স্বাধীনতা যুদ্ধ করা আর নিজেদের একটি রাজনৈতিক জনগোষ্ঠি হিশাবে বিশ্বসভায় প্রতিষ্ঠিত করার মধ্যে ফারাক দুস্তর। দ্বিতীয়টা কঠিন কাজ। সেটা বাইরে শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ নয়, অভ্যন্তরীণ ভাবে নিজেদের এক অখণ্ড রাজনৈতিক জনগোষ্ঠি হিশাবে গঠন করা। সামাজিক বিভেদ, পার্থক্য, প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঊর্ধ্বে উঠে এমন একটি রাজনৈতিক পরিমণ্ডল গঠন করা যেখানে সকলেই একটি মাত্র পরিচয়ে পরিচিত। সেটা হচ্ছে নাগরিক। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র এই নাগরিক পরিমণ্ডলের আবির্ভাব, স্ফূর্তি ও বিকাশ ছাড়া ...
বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক বাস্তবতা
খোলা কলাম
বাংলাদেশ প্রতিদিন
২১শে মার্চ, ২০১৩
বাংলাদেশের রাজনৈতিক মেরুকরণ যে চরিত্র গ্রহণ করেছে তাতে শাহবাগের রাজনীতি ও আচরণের বিপরীতে বিপুল মানুষের ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। মাহমুদুর রহমান আমার বন্ধু। তিনি স্বাধীনচেতা মানুষ। তার নিজস্ব চিন্তা আছে, তিনি আমার মতো কমিউনিস্ট নন, কিন্তু আমি আবার বামপন্থি নই। অতএব নাস্তিকও নই। খেয়ে না খেয়ে ধর্মের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণার সঙ্গে কমিউনিজমের কোনোই সম্পর্ক নেই। মনে রাখতে হবে, আস্তিক/নাস্তিক ভাগ শুরু হয়েছিল স্নায়ুযুদ্ধের সময় থেকে। সোভিয়েত ইউনিয়ন ও চীনের বিরুদ্ধে বেসামরিক যুদ্ধ পরিচালনার কৌশল হিসেবে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীরা প্রচার করেছিল কমিউনিজম ...
আবার উচ্চারিত হোক অমিতায়ু 'জয় বাংলা'
হৃদয়নন্দন বনে
কালের কন্ঠ
১ মার্চ, ২০১৩
সমকালের নিয়মিত কলামটি তরুণ প্রজন্মের আন্দোলন নিয়ে লিখব, সেটা আগেই ভেবে রেখেছিলাম। লিখতে লিখতেই মন পড়েছিল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রতি। সেখানে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর অপরাধের বিচারের রায় প্রদান চলছে। লেখা শেষ হতে না হতেই খবর এলো, যুদ্ধাপরাধী এবং মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত সাঈদীর ফাঁসির আদেশ হয়েছে ট্রাইব্যুনালের বিচারে। ওই পরিপ্রেক্ষিতে আমার পাঠকরা হয়তো স্বভাবতই চাইবেন, আমি এই শাস্তির বিষয়ে কিছু লিখি আজ। আমি মনে করি, যে বিচারিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে এবং যে শাস্তি প্রদান শুরু হয়েছে একে একে, সেই প্রেক্ষাপটে ...
মানবাধিকারের রাজনীতি-২
লোক কথা
নয়া দিগন্ত
২৪ জানুয়ারি ২০১৩
কিছু দিন আগে একটি লেখায় ২০১২ সালে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির ভয়াবহতা নিয়ে কথা বলছিলাম। মানবাধিকার কর্মীদের কারবার ব্যক্তিকে নিয়ে। সেখানে বলতে চেয়েছিলাম বাংলাদেশে মানবাধিকার আন্দোলন যদি ব্যক্তিকে রাষ্ট্রের নির্যাতনের হাত থেকে রা করতে চায় তাহলে এখন একমাত্র কাজ হচ্ছে ব্যক্তির মর্যাদা ও অধিকার অলংঘনীয় এই নীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্রকে  নতুন করে গঠন করা। এমন এক গঠনতন্ত্রের ভিত্তিতে যাতে কোন অবস্থাতেই নাগরিক মানবিক অধিকার সংসদের কোন আইন, বিচার বিভাগীয় রায় বা নির্বাহী আদেশে রহিত করা যাবে না। বহু কাটাছেঁড়ায় ছিন্নভিন্ন বর্তমান সংবিধানের জায়গায় দাবি করতে হবে নতুন গঠনতন্ত্রের, বাংলদেশকে নতুন ভাবে গঠন করতে হবে। এক হোক বা অনেক, যদি ব্যক্তির মানবাধিকার রাষ্ট্র লংঘন করে তাহলে তার বিরুদ্ধে মানবাধিকার কর্মীরা প্রতিবাদ জানায়,  দেশে-বিদেশে তার প্রতিকার চায়। ...
খালেদা জিয়া পারবেন কি?
কালের পুরাণ
প্রথম আলো
১৭ নভেম্বর ২০১২
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ধন্যবাদ। তিনি বলেছেন, জামায়াতে ইসলামীর সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায়িত্ব বিএনপি বা ১৮ দলীয় জোট নেবে না। জামায়াতে ইসলামী একটি আলাদা দল, তারা তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনে কর্মসূচি নিয়েছে, সেই কর্মসূচির সঙ্গে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই। এ সময় বিএনপির কোনো কর্মসূচিও ছিল না। তবে মির্জা সাহেব দেশবাসীকে এ কথাও জানিয়েছেন যে সরকার জামায়াতে ইসলামীকে এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতে উসকানি দিচ্ছে। অর্থাৎ সরকারের উসকানিতেই জামায়াতের কর্মীরা পুলিশের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে আবার তাদের ওপর চড়াও হচ্ছে! তার ...
হিলারি কিনটনের স্মার্ট পাওয়ার এপ্রোচ
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
০৮/০৭/২০১২
হিলারি কিনটন শুধু বাংলাদেশে আসছেন না। প্রথমত তিনি আসছেন চিন থেকে। তারপর তিনি আসবেন বাংলাদেশে। বাংলাদেশ থেকে যাবেন ভারতে। কলকাতায় মমতা ব্যানার্জির সঙ্গেও দেখা করবেন। তাঁর বাংলাদেশ সফরকে দিল্লী-ঢাকা-ওয়াশিংটন মিলে চিনের বিরুদ্ধে একটা প্রতিরোধের প্রাচীর গড়ে তোলার সফর হিশাবে দেখতে চাইছেন অনেকে। এটা খুবই সরল ভাবে দেখা। বিশ্ব অর্থনীতির মন্দা এবং ভাঙন বেসামাল হয়ে পড়ছে প্রায়ই। এর কারণে শক্তিশালী দেশগুলোর সামরিক ও নিরাপত্তা ভাবনা নতুন বাস্তবতায় বদলাচ্ছে। এর রূপ ঠিক কী দাঁড়াবে সেটা এখনও স্পষ্ট হয়ে ওঠে নি। চিনের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৈরিতাও আগের মতো তীব্র নয় এবং এই বৈরিতা চিরস্থায়ী হবে সেটাও আগাম অনুমান করা অসম্ভব। এটা ঠিক যে নিজ নিজ দেশের সাম্রাজ্যবাদী স্বার্থ টিকিয়ে রাখবার জন্য শক্তিশালী দেশগুলোর নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা সব সময়ই ছিল, আছে এবং থাকবে। ...
প্রতিরক্ষার কর্তব্য শুধু সেনাবাহিনীর নয়, প্রতিটি নাগরিকের
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
০২/০২/২০১২
দুই হাজার আট সালে নভেম্বরের শেষের দিকে আমি দৈনিক নয়া দিগন- (২৫.১১.২০০৮) পত্রিকায় একটা লেখা লিখেছিলাম, যার শিরোনাম ছিল “সেনাবাহিনী থেকে ইসলামি ভূত তাড়ানোর ‘সেকুলার প্লান”। হার্ভার্ড ইন্টারন্যাশনাল রিভিউ নামক পত্রিকায় ১৯ নভেম্বর ২০০৮ তারিখে সজীব ওয়াজেদ জয় ও ইরাক যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী মার্কিন সামরিক অফিসার কার্ল সিওভাক্কো যৌথ যে নিবন্ধ লিখেছিলেন সেটা পড়ে বাংলাদেশে কী ঘটতে পারে তার একটা আন্দাজ করতে চেয়েছিলাম। সজীব ওয়াজেদ জয় একজন ব্যক্তিমাত্র নন। তিনি শেখ হাসিনার সন-ান, ফলে মায়ের চিন-াচেতনা ও ধ্যানধারণার ওপর তার একটা প্রভাব থাকাই স্বাভাবিক। কিন' রক্তের সম্পর্ককে আমি গুরুত্ব দিয়ে দেখি নি। বরং গুরুত্বপূর্ণ মনে করেছি তার আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট শেখ হাসিনার উপদেষ্টা পদে থাকা। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এলে কী করবেন তার একটা আগাম পাঠ ওই লেখার মধ্যে ছিল বলে আমার মনে হয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধানের বদৌলতে কোনো একটি দল ক্ষমতায় আসা মানে মূলত একজনের রাজত্ব বা একনায়কতান্ত্রিক শাসন বলবৎ করা। ...
সরকারের ভারত নীতিই দায়ী
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
৩১/০১/২০১২
'Bangladesh has faced dozens of coups, failed or not, in its 40 years. But for an army spokesman to give details of one, on January 19th, was unusual’. -- `Politics in Bangladesh; Turbulent House. The army claims to have thwarted a coup'. ECONOMIST. 20 January 2012. ব্যর্থ হোক আর না হোক, কয়েক ডজন অভ্যুত্থান গত চল্লিশ বছরে বাংলাদেশকে মোকাবেলা করতে হয়েছে। তবে গত ১৯ জানুয়ারি তারিখে একজন সেনা মুখপাত্রের এক অভ্যুত্থানের বিস-ৃত বর্ণনা দেওয়া খুবই অস্বাভাবিক ব্যাপার (ইকোনমিস্ট, ২০ জানুয়ারি ২০১২)। গত দিনের এই লেখার প্রথম কিসি-তে বোঝাতে চেয়েছি ‘বিশৃংখলা’ এবং ‘অভ্যুত্থান’ আক্ষরিক দিক থেকে সমার্থক নয়, এটা আমরা সহজেই বুঝি। কিন' সেটা গুর"ত্বপূর্ণ নয়। আসল গুর"ত্ব হ"েছ সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর পর সংবিধান ও আইনের দিক থেকে উভয়ের পার্থক্যের তাৎপর্য। আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদও বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের বলেছেন, সেনাবাহিনীতে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানচেষ্টায় বেসামরিক কেউ জড়িত থাকলে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে। ...
নগর ভাবনা
ঢাকায় যাতায়াত ব্যবস্থার সংকট
সমকালীন প্রসঙ্গ
সমকাল
১৫/০৬/২০১০
ঢাকা বিশ্বের অন্যতম অবাসযোগ্য শহরে পরিণত হওয়ার প্রধান কারণ হিসেবে এখানকার যাতায়াত ব্যবস্থাকে চিহ্নিত করা যেতে পারে। যাতায়াত ব্যবস্থাই এ শহরের বাসিন্দাদের জীবন দুর্বিষহ করেছে। ঢাকায় চলাচলের এখন এমনই অবস্থা যে, বাড়ি থেকে বের হয়ে কোথাও যাওয়ার কথা মনে হলে বিরক্তির উদ্রেক হয়। দুনিয়ার অনেক বড় শহরেই যানজট হয় এবং তার জন্য যাত্রীদের দুর্ভোগও হয় যথেষ্ট। কিন্তু ঢাকায় এখন যে ধরনের যানজট হয় তার তুল্য যানজট অন্য কোনো শহরে হয় না। এর ফলে রাস্তা ফাঁকা থাকলে যে দূরত্ব ২৫-৩০ মিনিটে অতিক্রম করা যায়, যানজটের কারণে সেটা পার হতে সময় লাগে কখনও কখনও আড়াই-তিন ঘণ্টা। সাধারণ অবস্থায় এতে সময় লাগে দেড় ঘণ্টার মতো। যাতায়াতের জন্য এই অতিরিক্ত সময় অর্থনীতির কী পরিমাণ ক্ষতি করে তার কোনো সঠিক হিসাব আজ পর্যন্ত দেখা যায়নি। এ হিসাব বের করাও মুশকিল। তাছাড়া সরকারি কর্তৃপক্ষ এ হিসাব বের করতেও অনাগ্রহী। ...
সমাজে বিপজ্জনক বিভক্তি
[ রা জ নী তি ]
প্রথম আলো
২৮ মার্চ, ২০১৩
বাংলাদেশের সমাজ দুই ভাগে ভাগ হয়ে গিয়েছে, এতে সন্দেহ নেই। এই বিভাজনকে এতদিন আমরা যেভাবে আওয়ামী লীগ-বিএনপি বলে চিনতাম সেই বিভক্তি নয়। এই ভাগাভাগি আরও গভীরে, আরও ব্যাপক, আরো বিস্তৃত। সমাজে মানুষ বিভিন্ন পরিচয় নিয়ে হাজির থাকে। সমাজের ভাষা ও সংস্কৃতিগত নানান ভিন্নতা ও বৈচিত্র্য আছে, নানা নৃতাত্ত্বিক জাতি আছে, বিভিন্ন ধর্ম রয়েছে এবং তাদের নিজের নিজের সংস্কৃতি, ধর্ম ও আত্মপরিচয়ের নানান ব্যাখ্যাও আছে। এই বিভিন্নতা ও বৈচিত্র্য থেকে সমাজ ও সংস্কৃতি তাদের পারস্পরিক ঐক্যের রসদ সংগ্রহ করে। সমাজ গতিশীল থাকে। পরস্পরের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও প্রতিযোগিতা যেমন থাকে, তেমনি নানান সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিনিময় ও নিত্যনতুন সম্পর্ক নির্মাণের মধ্য দিয়ে একটা সামাজিক ভারসাম্য গড়ে ওঠে। সমাজ এগিয়ে যায়, বিকশিত হয়। সমাজ কোন বিমূর্ত ব্যাপার নয়, তবে পত্রিকার পাতা সমাজতত্ত্ব নিয়ে আলোচনার উপযুক্ত জায়গা নয়। তবুও এটা বোঝা দরকার যে, সমাজ আমাদের নিজ নিজ চাহিদা পূরণের বাধা হয়ে হাজির থাকে, একই সঙ্গে সেই সমাজই আবার চাহিদা পূরণের উপায়ও বটে। যেমন, ...
বাস্তবতা জানলেই সঠিক নির্দেশনা দেয়া সম্ভব
রাজনীতি
ইত্তেফাক
১৬ মার্চ, ২০১৩
বাংলাদেশের পরিস্থিতি ভাবাচ্ছে সবাইকে। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি ও শক্তিও নতুন পরিস্থিতিতে নতুন ভাবে বিন্যস্ত হচ্ছে। ভীত সন্ত্রস্ত মধ্যবিত্ত শ্রেণি দুই পক্ষের মধ্যে কোন একটা সমঝোতার মধ্য দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে শশব্যস্ত। তারা চাইছে রাজনীতির প্রধান দুই প্রতিপক্ষ সংলাপে বসুক। কোন একটা ফর্মুলা বের করে নির্বাচন করুক। হীনবীর্য পাতিবুর্জোয়া নীতিবাগীশরা যথারীতি সহিংসতা নিয়ে তুমুল তর্কবিতর্কে আসর গুলজার করে রেখেছে। জামায়াত-শিবিরকে দানব বানাবার কাজে সকল সৃষ্টিশীলতা ব্যয় করতে তারা কসুর করছে না,যেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর তার ট্রিগার হ্যাপি পুলিশ বাহিনী দিয়ে জামায়াতি দানবদের আরও নিখুঁত টার্গেটে হত্যা করতে পারে। অন্যদিকে জামায়াত বিরোধী মওলানা মাশায়েখ ও বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণকে তারা কাতর ভাবে বোঝানোর চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে যে তারা 'নাস্তিক' নয়। বাংলাদেশে নাস্তিক সবসময়ই ছিল এবং থাকবে। বাংলাদেশের এখনকার রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের এটা মোটেও মূল বিষয় নয়। রাজনীতিতে শুধু সেই নাস্তিকদেরই তাদের প্রতিপক্ষ গণদু্ষমন হিসাবে চিহ্নিত করেছে যারা ভিন্ন বিশ্বাসের মানুষ ও তাদের আবেগের ক্ষেত্রগুলোকে মর্যাদা দিতে শেখেনি। অপরের প্রতি আচরণে মানবিক মর্যাদার ...
নতুন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি আপিল বিভাগ
সরল গরল
প্রথম আলো
২১শে মার্চ, ২০১৩
বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত একটি অসাধারণ আইনি অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হচ্ছেন। সবার নজর থাকবে সংসদের বেঁধে দেওয়া ৬০ দিন সময়সীমার মধ্যে কাদের মোল্লার মামলায় চূড়ান্ত রায় মেলে কি না। সংসদ অতীব জরুরি বিবেচনা করেই আপিল বিভাগে এই মামলা নিষ্পত্তিকল্পে সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে। কিন্তু আপিল বিভাগের রোববারের আদেশটিতে তার যথেষ্ট উপযুক্ত প্রতিফলন ঘটেছে বলে প্রতীয়মান হয় না। ১০ মার্চ আদালত সিদ্ধান্ত দিয়েছেন, ৩১ মার্চ শুনানি শুরু হবে। দেখা যাচ্ছে, এই একটি মুলতবির সিদ্ধান্তেই পুরো তিন সপ্তাহ পার হবে। অথচ গোড়াতে মাত্র সাড়ে ...
নির্মূলের রাজনীতি
আ লো ক পা ত
ইত্তেফাক
৫ মার্চ, ২০১৩
নির্বিচারে পুলিশ গুলি করে একদিনে ষাটেরও অধিক মানুষ হত্যা করেছে, এখনও হত্যাযজ্ঞ চলছে। ফলে আমাদের প্রথম কাজ হচ্ছে হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করা। এই বর্বরতার কঠোর নিন্দা করা। এর আগে 'এই হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করুন' বলে আবেদন জানিয়েছি সকল পক্ষের কাছে। কিন্তু তার পরিবর্তে এই হত্যাযজ্ঞকে কেন 'গণহত্যা' বলা হোল তা নিয়ে শোরগোল শুরু করে দিয়েছে দলবাজ ও মতান্ধরা। তারা বলছে জামায়াত-শিবির পুলিশের ওপর আক্রমণ চালিয়েছে, অতএব নির্বিচারে পুলিশ দিয়ে মানুষ হত্যা জায়েজ। কারণ মারা হচ্ছে জামায়াত-শিবির। তাদের দাবি, যেহেতু পুলিশের ওপর আক্রমণ হয়েছে অতএব ক্ষমতাসীন সরকারের গণহত্যার পথই সঠিক পথ। ফলে গুলি চলেছে, হত্যাযজ্ঞ চলছে। আন্তর্জাতিকভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে অনেক দেশ। তবুও এই হত্যাযজ্ঞ চলবে।   ...
যুদ্ধাপরাধীদের দণ্ড দান এবং জামায়াতি তাণ্ডব দমনে সরকার কি নমনীয়?
দশ দিগন্তে
ইত্তেফাক
২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩
গত শুক্রবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহর-বন্দরে জামায়াতি তাণ্ডব, ঢাকায় এক কনেস্টবল হত্যা, শনিবারেও (২৩ ফেব্রুয়ারি) পাবনায় জামায়াতের হরতাল পালনকে কেন্দ্র করে দুই ব্যক্তির মৃত্যু, রবিবারে আবার সারাদেশে জামায়াতিদের হরতাল ডাকা ইত্যাদি দেখে মনে হয় টিকটিকি মারা গেলেও তার লেজ লাফাবার ক্ষমতা রাখে। জামায়াতিদের লেজ অবশ্য বিপজ্জনকভাবেই লাফাচ্ছে। বাংলাদেশের জামায়াতকে টিকটিকির সঙ্গে তুলনা করেছি বলে কেউ যেন মনে না করেন, আমি তাদের নাশকতামূলক কাজের ক্ষমতাকে ছোট করে দেখছি। বরং এই ক্ষমতা যে তাদের অক্ষুণ্ন তার প্রমাণ তারা এখনো ...
পদোন্নতির বিনিময়ে মৃত্যুদণ্ডের রায়!
লোককথা
নয়া দিগন্ত
১৩ ডিসেম্বর ২০১২
বিচারপতি নিজামুল হক পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু স্কাইপি আদালতের বাইরে ‘বিধিবহির্ভূত’ ভাবে অন্য ব্যক্তির সঙ্গে বিচার-সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনার দায় তিনি স্বীকার করেন নি। পদত্যাগের কারণ দেখিয়েছেন ব্যক্তিগত। ‘বিধিবহির্ভূত’ কথাটা বলার কারণ হচ্ছেÑ যত দূর জানিÑ সাবেক প্রধান বিচারপতি লতিফুর রহমানের নেতৃত্বে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল ২০০০ সালে বিচারপতিদের জন্য সংবিধানের ৯৬(৪) অনুচ্ছেদ বাস্তবায়নের ল্েয একটি আচরণবিধি (Codes of Conduct) তৈরি করেছিলেন। বিচারপতি নিজামুল হক এই আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন। গত রাতে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক একটি টেলিভিশানে বলেছেন, বিচারপতি নিজামুল হক অবশ্যই ...
মওলানা ভাসানী ও নতুন বিপ্লবী রাজনীতি
কলাম
নয়া দিগন্ত
১৮ নভেম্বর ২০১২
ভাসানী আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছেন ৩৬ বছর হোল। ইতিমধ্যে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে পড়েছে, চিন পুঁজিতান্ত্রিক অর্থনীতির পথ ধরেছে এবং পুঁজিতান্ত্রিক ব্যবস্থার যে সকল দোষ আছে সেই সব বহন করবার পরেও অর্থনৈতিক সাফল্য বা বিপুল হারে ‘প্রবৃদ্ধি’ দেখিয়ে দুনিয়ায় তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এই সাফল্য রাজনৈতিকও বটে। এই অর্থে যে চিনের কমিউনিস্ট পার্টিকে উৎখাত করে চিনের পুঁজিতান্ত্রিক রূপান্তর ঘটে নি। কমিউনিস্ট পার্টি মতায় বহাল তবিয়তেই আছে। শুনতে স্ববিরোধী হলেও কমিউনিস্টদের নেতৃত্বে পুঁজিতান্ত্রিক রূপান্তর বা লেনিনের ভাষায় বলা যায় শ্রমিক শ্রেণির নেতৃত্বে ...
দারুণ রায়! দারুণ বৈচারিক প্রতিভা!
উপ-সম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
২৬/০৯/২০১২
বাংলাদেশের বর্তমান বাস্তবতা বিচার করে বিদ্যমান গণবিরোধী অগণতান্ত্রিক রাজনীতি ও রাষ্ট্রব্যবস্থার বিপরীতে জনগণের রাজনৈতিক শক্তি বিকাশের রাজনীতি কী হতে পারে তার নীতি ও কৌশল নির্ধারণই এখন বাংলাদেশের প্রধান বিবেচ্য বিষয়। সেই দিকে নজর রেখে কয়েক কিস্তিতে লেখা শুরু করেছিলাম, প্রথম লেখা ছিল ‘বাংলাদেশের রাজনীতিতে আঞ্চলিক উত্তাপ’ (নয়া দিগন্ত২/৯/২০১২)। তবে অনিবার্য কারনে ছেদ পড়েছে। পাঠকের কাছে মা চেয়ে আবার শুরু করছি। আভ্যন্তরীণ বাস্তবতা যতোটা নয়, তার চেয়ে আগামি দিনে বাংলাদেশের রাজনীতিতে অনেক বেশি নির্ধারক ভূমিকা রাখবে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বাস্তবতা। এই প্রসঙ্গ দিয়ে শুরু করেছিলাম। কিন্তু ইতোমধ্যে দেশের ভেতরে বেশ কিছু নতুন বিষয় সামনে চলে এসেছে। ত্রয়োদশ সংশোধনী আগামি নির্বাচনের সঙ্গে সরাসরি প্রাসঙ্গিক। এই সংশোধনী সংক্রান্ত পূর্ণ রায় প্রকাশিত হয়েছে। ঢাউস জিনিস। বাংলাদেশের গণমাধ্যমগুলো এ নিয়ে এমন এক ভাব করছে যে এই রায়ই আগামি দিনের রাজনীতি নির্ধারণ করে দেবে। এই ফালতু ধারণাকে নাকচ করা দরকার। ...
বাংলাদেশের রাজনীতিতে আঞ্চলিক উত্তাপ
উপ-সম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
০২/০৯/২০১২
অনেকে দাবি করছেন, বাংলাদেশের রাজনীতি সংঘাতের দিকে যাচ্ছে আবার। এই দাবির পেছনে তারা বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতিকেই দায়ী করেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে সংঘাত নতুন কিছু নয়। ফলে শেখ হাসিনার সরকারের মেয়াদ শেষ হবার তারিখ যতোই ঘনিয়ে আসবে ততোই সংঘাতের সম্ভাবনা বাড়বে। কিন্তু এই সংঘাত বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও রাজনীতির জন্য অতিশয় বিপজ্জনক হয়ে ওঠার সম্ভাবনা খুব কমই ছিল। কিন্তু ভারতের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির কারণে পরিস্থিতি দ্রুত বদলে যাচ্ছে এই কথাটি বলবার জন্যই এই লেখাটি লিখছি। বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির ইস্যু নিয়ে লিখবার আগে আঞ্চলিক ...
সেনাবাহিনীর নয় দায় সরকারের
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
৩০/০১/২০১২
ফরহাদ মজহার ॥ জানুয়ারির ১৯ তারিখে (২০১২) ‘মাঘের পড়ন- বিকেলে’ পি এস পরিদপ্তরের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: মাসুদ রাজ্জাক এবং সেনাবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত জাজ অ্যাডভোকেট জেনারেল কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদ সিদ্দিক ‘সেনাবাহিনীর আমন্ত্রণে’ একটি ‘প্রেস ব্রিফিং’ দিয়েছিলেন বা সাংবাদিক সম্মেলন করেছিলেন। আমি সেনাবাহিনীর প্রেস ব্রিফিংয়ে হাজির ছিলাম না, সে এখতিয়ার আমার নাই। ফলে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে যারা কথা বলেছেন তাদের মুখে ‘অভ্যুত্থান’ শব্দটি উচ্চারিত হয়েছিল কি না বলতে পারব না। তবে তাঁদের প্রেস ব্রিফিংয়ের লিখিত বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে বিডিনিউজ২৪-এ। সেখানে তাদের লিখিত বক্তব্যের শিরোনামে ‘অভ্যুত্থান’ শব্দটি নাই। প্রেস ব্রিফিংয়ের শিরোনামে লেখা রয়েছে, “সেনাবাহিনীতে বিশৃংখলা সৃষ্টির অপপ্রচার চালানো সম্পর্কিত সেনা সদর দপ্তরের সংবাদ সম্মেলন”। তবে লেখায় কোথাও কোথাও ‘তথাকথিত সেনা অভ্যুত্থান সংক্রান- প্রস'তি’, ‘বাংলাদেশে সংঘটিত সেনা অভ্যুত্থান’ ইত্যাদি বাক্যবন্ধ ব্যবহার করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনটি যতটা না ‘অভ্যুত্থান’-সংক্রান- ছিল, তার চেয়ে বেশি ছিল সেনাবাহিনীতে বিশৃংখলা সৃষ্টির অপপ্রয়াস সম্পর্কে। ...
শিক্ষা ও কওমি মাদ্রাসার রাজনীতি
লোক কথা
নয়া দিগন্ত
২৫ এপ্রিল, ২০১৩
হেফাজতের আবির্ভাব এবং তাদের ১৩ দফা দাবিকে কেন্দ্র করে নিজ নিজ রুচি ও হিংসার মাত্রা অনুযায়ী রাজনীতির বিভিন্ন প বিভিন্ন ভাষায় প্রতিপকে আক্রমণ এবং নিজ নিজ শ্রেণির পে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এর দ্বারা সমাজে শ্রেণি ও শক্তির চরিত্র আমরা কিছুটা শনাক্ত করতে পারছি। এর মধ্য দিয়ে সামগ্রিক ভাবে বাংলাদেশে বুদ্ধিবৃত্তিক স্তর সম্পর্কেও ধারণা করা যায়। আসলে বাংলাদেশে কী ঘটছে তা বুঝবার জন্য সঠিক তথ্যের চেয়ে প্রচার ও প্রপাগান্ডার দিকে অতি মাত্রায় ঝোঁক এবং বিশ্লেষণের চেয়েও নিজের বদ্ধমূল অনুমান ও মতের গোঁড়ামি নির্বিচারে উগরে দেবার মানসিকতাই প্রকট হয়ে আছে। যথেষ্ট না হলেও বিভিন্ন শ্রেণিগুলোকে চেনার জন্য তাদের দাবিদাওয়াগুলো হলো প্রাথমিক উপাদান। দাবিদাওয়া কেন্দ্র করে তারা পে বিপে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি সমাজে তাদের মতাদর্শিক লড়াই চালায়। হেফাজতের ১৩ দফাকে কেন্দ্র করে সমাজে প-েবিপে যে তর্ক তৈরি হয়েছে তার গুরুত্ব অনেক, এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নাই। তা ছাড়া হেফাজতে ইসলামই শুধু ইসলাম নিয়ে কথা বলছে তা নয়। বাংলাদেশে ধর্ম, রাজনীতি, সংস্কৃতি, ...
জামায়াত নিষিদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের একটি অতীত নির্দেশনা
সরল গরল
প্রথম আলো
২১শে মার্চ, ২০১৩
জনগণ তিন-চতুর্থাংশ ভোট দিয়ে তৈরি করেছে একটি পলাতক সংসদ। এই সংসদের কর্তারা জামায়াত নিষিদ্ধকরণ প্রশ্নে অব্যাহতভাবে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য দিয়ে চলেছেন। এ থেকে স্পষ্ট, তাঁরা চরম সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন। তাঁরা প্রথমে ইঙ্গিত দিয়েছেন, নিবন্ধন মামলার রায় দেখে জামায়াত নিষিদ্ধ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। এখন বলছেন, সন্ত্রাস দমন আইনে জামায়াত নিষিদ্ধের সুযোগ আছে। তাঁরা চিন্তাভাবনা করছেন। ব্যারিস্টার আমীর-উল-ইসলাম ও ড. মিজানুর রহমান বলছেন, ‘সন্ত্রাস দমন আইনে জামায়াত নিষিদ্ধ করা যায়।’ ড. শাহদীন মালিকের মতে, এটা ছাড়া ১৯৭৪ সালের আইনেও করা যায়। আদালতের ...
অসামান্য বিজ্ঞানী জামাল নজরুল ইসলাম
স্ম র ণ
ইত্তেফাক
১৯ মার্চ, ২০১৩
তাঁর সঙ্গে দুইবার মাত্র দেখা হয়েছিল। এর একটা বড় কারণ, তিনি তাঁর জ্ঞানচর্চা ও শিক্ষকতার সূত্রে থাকতেন চট্টগ্রামে। দ্বিতীয় কারণ আমরা এমন এক সমাজ তৈরি করেছি যেখানে জ্ঞানের কদর নাই, বিজ্ঞান তো দূরের কথা। সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া ও বিশ্বসভায় নেতৃত্ব অর্জনের ক্ষেত্রে মৌলিক বিজ্ঞান চিন্তার ভূমিকা সম্পর্কে আমাদের বিন্দুমাত্র ধারণা নাই। বিজ্ঞানীর যোগ্য সামাজিক সম্মান আমরা দিতে জানি না, তাঁদেরকে ঘিরে আমাদের কোন সামাজিক সংঘ নাই, চিন্তার আদান-প্রদানের কোন সাধারণ পাটাতন নাই। ফলে জ্ঞানবিজ্ঞানের আউলিয়া হয়ে তাঁরা তাঁদের নির্জন সাধনায় একা একা রত থেকেছেন। এখন যখন সংবাদ পাচ্ছি যে, তিনি আর নাই, তখন বেদনায় কাতর হতে পারি, কিন্তু সেটা কুমিরের অশ্রুর বেশি মূল্য পাবে কিনা জানি না। আমার বিজ্ঞানী বন্ধু-বান্ধবদের কাছে প্রায়ই শুনতাম জামাল নজরুল ইসলাম যদি দেশে ফিরে না এসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বা ক্যাম্ব্রিজের মতো বিলাত-ইউরোপের কোন প্রখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে যেতেন তাহলে নির্ঘাত্ তিনি নোবেল পুরস্কার পেতেন। এইসব বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি পড়িয়েছেন, গবেষণা করেছেন। প্রিন্সটন, ক্যাম্ব্রিজসহ বহু ...
রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের নতুন সাংগঠনিক রূপ
রাজনীতি
ইত্তেফাক
১৩ মার্চ, ২০১৩
প্রথমে একটি কথা স্পষ্টভাবে বলা দরকার। বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে নাগরিকদের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা করা হয়েছে, অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজের ঘটনা ঘটেছে, অনেক বাড়ি জ্বালিয়ে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করা হয়েছে। যারা এই হামলার শিকার হয়েছেন তাদের প্রায় প্রত্যেকেই গরিব ও নিপীড়িত শ্রেণির মানুষ। তাঁদের অপরাধ তারা হিন্দু। মনে রাখতে হবে ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গণমানুষের পাল্টা ক্ষমতা যদি কেউ তৈরি করতে চায় তাহলে তার প্রথম কাজ হচ্ছে মাঠে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের রক্ষা করা। এটা স্রেফ বিএনপি বা জামায়াতের একটি কি দুইটি বিবৃতি দিয়ে দায় ...
প্রজন্ম চত্বর : দ্বিতীয় পর্যায়ের আন্দোলন
খোলা কলাম
বাংলাদেশ প্রতিদিন
২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩
একুশে ফেব্রুয়ারি মহাসমাবেশ থেকে প্রজন্ম চত্বর যে কর্মসূচি ঘোষণা করে তাতে মনে হয়েছিল ১৭ দিনের মাথায় প্রজন্ম তাদের আন্দোলনের প্রথম পর্যায়ের ইতি টানল। কিন্তু একদিন যেতে না যেতে প্রজন্মকে আবার ঘুরে দাঁড়াতে হলো। নতুন প্রপঞ্চ যুক্ত হলো আন্দোলনে। আন্দোলন নতুন একটি চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়ল। সেই চ্যালেঞ্জকে সাহসের সঙ্গে নতুন প্রজন্ম গ্রহণ করেই আবার ঘুরে দাঁড়াল। আমি আগের লেখাগুলোতে বলেছি, শাহবাগ চত্বরে এই লাখো মানুষের ঢল একটা বিরাট শক্তি। কিন্তু এটা কোনো সুস্পষ্ট রাজনৈতিক-সাংগঠনিক শক্তি নয়। প্রজন্মের এই আন্দোলনকে বুঝতে ...
৪০ বছর আগে, ৪০ বছর পরে
রাষ্ট্র ও সুশাসন
প্রথম আলো
৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩
আমার কাছে বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধের সবচেয়ে বড় ঘটনা হলো, বাংলাভাষী অঞ্চলে বাঙালি মুসলমানদের উত্থান। সেই শতাব্দীর শেষার্ধে আরেক বড় ঘটনা হলো, সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অভ্যুদয়। সেই রাষ্ট্রের দন্তগমের সময় ইতিহাসবিদ-ভবিষ্যদ্বক্তা হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে নিতল ঝুড়ি হিসেবে অভিহিত করেন। বাংলাদেশের দুই অর্থনীতি-প্রবক্তা সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের কথা বলেন। তাঁরা ভেবেছিলেন ব্যাঙের ঠ্যাং, পুঁটি ও ইলিশ মাছ এবং পাট রপ্তানি করে অনেক টাকা পাওয়া যাবে। তাঁদের হিসাবের মধ্য ছিল না ওপেকের কালো ধোঁয়ার কথা। ...
বৌদ্ধ মন্দির ও জনপদের আগুনে বাংলাদেশও ছাই হয়ে যেতে পারে
লোককথা
নয়া দিগন্ত
৪ অক্টোবর ২০১২
যে সকল দুর্বৃত্ত বৌদ্ধ মন্দির ও বৌদ্ধ জনপদ আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলেছে, তারা সজ্ঞানে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অস্তিত্বের গোড়ায় আগুন দিয়েছে। পুড়ে যাওয়া ভগবান বুদ্ধের মূর্তি তথাগতের নয়, বাংলাদেশের নিজেরই ছবি। পত্রিকায় প্রকাশিত একটি ছবি চোখে লেগে আছে। ছাই হয়ে যাওয়া উপাসনাস্থল, প্রায় ভস্ম হয়ে যাওয়া নানান জিনিসপত্রের পাশে পুড়ে যাওয়া টিনের স্তূপ। ঐসবের মধ্য দিয়ে তথাগতের মূর্তি দূর থেকে মূর্তির গায়ে আগুনে পুড়ে যাবার চিহ্ন, অথচ ওর মধ্যেও দূরে মাথা উঁচু করে সারি সারি দাঁড়িয়ে আছে সুপারিগাছ। ভস্মস্তূপ থেকে ...
দলের অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্র
খোলা কলাম
বাংলাদেশ প্রতিদিন
০১/০৮/২০১২
গণতন্ত্র বলতে আমাদের দেশে কেবল নির্বাচনকে বুঝানো হয়। কিন্তু গণতন্ত্র ব্যাপক অর্থবোধক। বিশাল তার ব্যাপ্তি। বহু বছর ধরে আচরিত এ বিষয় ধীরে ধীরে মানুষের উপলব্ধিতে এসেছে যে, গণতন্ত্র কেবল নির্বাচন বা সরকার গঠনের পদ্ধতি নয়_ গণতন্ত্র একটা শাসন পদ্ধতি, যা রাষ্ট্র এবং সমাজকে পরিচালিত করে। গণতন্ত্র এমন একটি পদ্ধতি, যা রাষ্ট্র এবং সমাজ জীবনকে নিয়ন্ত্রিত করে, দিকনির্দেশনা দেয় এবং নির্দিষ্ট জায়গায় পেঁৗছানোর প্রক্রিয়া তৈরি করে। গণতন্ত্রের বিভিন্ন রকম পদ্ধতি আছে, কিন্তু আমাদের দেশের সবাই একমত যে, সংসদীয় গণতন্ত্র হচ্ছে ...
মানবাধিকার ও হরতাল বিরোধিতার রাজনীতি
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
২৬/০৪/২০১২
মানুষকে ‘গুম’ করে ফেলার অপরাধ মানবাধিকারের চরম লংঘন। রাষ্ট্র নাগরিকদের রক্ষা করবার কথা, কিন্তু রাষ্ট্রই নাগরিকদের ‘গুম’ করে ফেলছে। যে ‘গুম’ হয়ে যাচ্ছে তাকে আর পাওয়া যাচ্ছে না, কিম্বা কিছু দিন পর তার লাশ আবিষ্কৃত হচ্ছে। এই অপরাধের বিরুদ্ধে বিএনপির ডাকা হরতালের ইতিবাচক দিক হচ্ছে মানবাধিকার রক্ষার লড়াই জাতীয় রাজনীতির বিষয়ে পরিণত হবার সম্ভাবনা এই প্রথম বাংলাদেশে তৈরি হয়েছে। হরতাল বা কঠোর রাজনৈতিক কর্মসূচির বিরুদ্ধে যেভাবে চতুর্দিকে প্রচার চলছে সেই প্রচারের রাজনৈতিক চরিত্র বোঝা এখন একটা জরুরি কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ‘গুম’ হয়ে যাওয়া বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী ও তার ড্রাইভার আনসারকে সরকার এখনও উদ্ধার করতে সক্ষম হয় নি। প্রকাশ্যে হাজির করতে ব্যর্থ হয়েছে। বিএনপির তিন দিনের হরতালও সাময়িক শেষ হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া ইলিয়াস আলী ও তার ড্রাইভার আনসারকে তাদের আত্মীয়স্বজনের কাছে ফিরিয়ে দেবার জন্য সরকারকে আগামি ২৮ তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছেন। ইতোমধ্যে মানুষ পুড়ে মরেছে, পুলিশের গুলিতে বিশ্বনাথে তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কতজন তার হিশাব ...
ফেব্রুয়ারির পিলখানা : ভাষার মাস আর আগের মতো নাই
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
২৫/০২/২০১২
ফেব্রুয়ারি মাস ভাষার মাস। ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি নিয়ে আমাদের আবেগ, ভালবাসা ও রাজনীতির মাস। কিন' আমার অনুমান ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারির ২৫-২৬ তারিখে পিলখানায় যে রক্তাক্ত ঘটনা ঘটেছিল, তার পর থেকে ফেব্রুয়ারি ঠিক আগের মতো আর নাই। এর মানে এই নয় যে ভাষা, সাহিত্য বা সংস্কৃতি নিয়ে আমাদের আবেগ উবে যাবে কিম্বা ভাষা ও সংস্কৃতি যেভাবে আমাদের রাজনৈতিক পরিচয় পরিগঠনের ক্ষেত্রে ঐতিহাসিক ভূমিকা রেখেছে সেই সব মুছে যাবে। এমনকি আগামি দিনে তার রূপ কী দাঁড়াতে পারে সেই সকল বিষয় নিয়ে বিবেচনার অবসরও আমাদের কমে যাবে। না, তা হবে না। সেটা বলছি না। তাহলে ফেব্রুয়ারি আগের মতো আর নাই বলছি কোন অর্থে? এক দিক থেকে উত্তর দেওয়া সহজ। দুই হাজার নয় সালের ফেব্রুয়ারির ২৫ ও ২৬ পিলখানায় একটি রক্তাক্ত হত্যাযজ্ঞ ঘটেছিল। এই হত্যাযজ্ঞের কুফল বাংলাদেশের ওপর একটা কালো ছায়া ফেলেছে। এই অন্ধকার দীর্ঘস'ায়ী হতে বাধ্য। এটা হচ্ছে সহজ উত্তর। হতে পারে যে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে ২৫ ও ২৬ তারিখকে আমরা ...
দিল্লির সামরিক ও নিরাপত্তা স্বার্থের গোলামি বাংলাদেশের ‘নিয়তি’ হতে পারে না
উপসম্পাদকীয়
নয়াদিগন্ত
১৭/০৯/২০১১
দিল্লি ও ঢাকার একটা নিশ্চয়-জ্ঞান হয়েছে। সেই জ্ঞান হোল বাংলাদেশ ও ভারতের ‘নিয়তি’ একই সূত্রে গাঁথা। ইংরেজিতে ব্যবহার করা হয়েছে shared destiny। এই নিয়তিবাদিতাকে আমরা ভবিষ্যত সম্পর্কে দুই দেশের একটা সাধারণ দৃষ্টিভঙ্গি বা আশাভরসা হিশাবে ব্যাখ্যা করতে পারতাম। কিন্তু দেখা যাচ্ছে তা বুঝাবার জন্য আলাদা একটি কথা ব্যবহার করা হয়েছে : common vision। তাহলে শেয়ার্ড ডেসটিনি কথাটার মানে অন্য কিছু নয়। দুইয়ের ‘নিয়তি’ এক ও অভিন্নÑ এই সুনির্দিষ্ট অর্থেই কথাটা বুঝতে হবে। নিশ্চিত করেই বলা হচ্ছে ভারত ছাড়া বা ভারতের বাইরে বাংলাদেশের আলাদা বা নিজস্ব কোন ‘নিয়তি’ নাই। আগামি দিনে ভারত যা হতে চায় বা হবে আমরাও তা-ই হব। যদি ভারত যা হতে চেয়েও পারবে না, সেই ব্যর্থতাও আমাদের ‘নিয়তি’ হয়ে উঠবে। ভারতের সফলতা শুধু নয়, দুর্দশাও আমাদের পরিণতি হবে। ভারত ও বাংলাদেশ উভয়েরই কপালের লিখন একটাই। তাই কি? যদি তা-ই হয় তাহলে বাংলাদেশের আর আলাদা রাষ্ট্র হয়ে থেকে ঝামেলা বাঁধিয়ে লাভ কী? ভারতের অঙ্গীভূত হলেই তো সব কিছুই ...

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত অনলাইন ঢাকা গাইড -২০১৩